For English Version
মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮
হোম সারাদেশ

ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে যুবককে আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ

Published : Thursday, 11 January, 2018 at 5:40 PM Count : 47

রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক নাঈমুল হাসান নাঈমের বিরুদ্ধে যুবককে আটকে রেখে নির্যাতনের পর চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে।  বুধবার দুপুরে আমজাদ হোসেন নামক ওই যুবককে ধরে নিয়ে যায় ছাত্রলীগ নেতা নাঈমের অনুসারীরা। এরপর তাকে বেধড়ক মারধর করে। পরে তার বাড়িতে ফোন করে চাঁদা দাবি করে। এঘটনায় জড়িত সন্দেহ একজন আটক করেছে বোয়ালিয়া থানা পুলিশ।

আহত আমজাদ হোসেনকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) নিয়ে যাওয়া হয়। আহত আমজাদ হোসেন মোহনপুর উপজেলার গোছাবাজার গ্রামের তৈয়ব আলীর ছেলে। পড়াশোনা শেষে সে নেটওয়ার্ক মার্কেটিংয়ের ব্যবসা করে ।

আমজাদ জানায়, বুধবার দুপুরে পেশাগত কাজে রাজশাহী আসলে তাকে রাজশাহী কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাঈমুল হাসান নাঈমের নেতৃত্বে রতন, রকি, রায়হান, আশরাফুল, শরিফুলসহ ৫/৬ জন ছাত্রলীগ কর্মী তুলে নিয়ে যায় রাজশাহী সিটি কলেজ হোস্টেলের দোতলার অস্ত্র সজ্জিত কক্ষে। এরপর তাকে বিভিন্ন অস্ত্র দিয়ে বেধড়ক পেটানো হয়। পরে আমজাদের পরিবারের কাছে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে দেড় লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে ছাত্রলীগ কর্মীরা।

তার ভাষ্য, অস্ত্রভরা সে ঘরে মারধরের পরে তাকে হোস্টেলের ছাদে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে তাকে বেধে মারধর করে পরিবারের কাছে টাকা চাওয়া হয়। প্রথমে বিকাশের মাধ্যমে ৩০হাজার ও পরে আমজাদকে ফেরতের সময় বাকি টাকা দেওয়ার কথা হয়।

এ অবস্থায় তার স্ত্রী পুলিশে অভিযোগ করে। আমজাদের মোবাইলের নম্বর ট্রেস করে তাকে মালোপাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে পাওয়া যায়। পরে তাকে গুরুত্বর অবস্থায় উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আহত আমজাদ দাবি করে, মালোপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির কোন এক কর্মকর্তার সাথে ছাত্রলীগের ওই নেতাদের যোগসাজস রয়েছে। তার উপস্থিতিতেই ওই পুলিশ কর্মকর্তার সাথে কথা হয়।

অভিযোগের বিষয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাঈমুল ইসলাম নাঈম বলেন, যে নাঈমের বিরুদ্ধে অভিযোগ সে নাঈম না আমি। নাঈম রাজশাহী কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মাকসুুদুর রহমান সৌরভের অনুসারী। সে নাঈম এই কাজটি করে থাকতে পারে। স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে দুপুর পর্যন্ত আমরা পার্টি অফিসে ছিলাম। নিজ দলের কর্মীদের উপস্থিতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের নাম কেউ ইচ্ছে করে দিয়েছে। আমাদের কোন ছেলে এমন কাজ করতে পারে না।

তবে এই বিষয়ে জানতে রাজশাহী কলেজ শাখা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক খন্দকার মাকসুদুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়।

নগরীর বোয়ালিয়া থানার উপপরির্দশক মিজানুর রহমান জানান, আমজাদের স্ত্রী আমাদের কাছে এসে বিষয়টি জানালে তার মুঠোফোনের নম্বর ট্রেস করে মালোপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির সামনে থেকে উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে হাসাপাতালে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানো হয়েছে।

তিনি আরো জানান, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। তবে এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোহাগ নামের একজনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।

আরএইচএফ/এইচএস








« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisement: 9513663
E-mail: info@dailyobserverbd.com, news@dailyobserverbd.com, advertisement@dailyobserverbd.com,   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft