For English Version
মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০১৮
হোম জাতীয়

পুলিশকে মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামার তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

Published : Tuesday, 9 January, 2018 at 1:04 PM Count : 40

পুলিশকে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর ও আপসহীন লড়াইয়ে নামার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার সকালে পুলিশ স্টাফ কলেজের আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (আইসিসি) পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'জঙ্গিবাদের সমস্যার মতো মাদকের সমস্যাও এক ভয়ানক সমস্যা। মাদকের ব্যাপারে কোনো ছাড় নয়। '

তিনি বলেন, 'আপনারা যে দক্ষতার সঙ্গে জঙ্গিবাদ মোকাবেলা ও দমন করেছেন, সেই দক্ষতা ও আন্তরিকতা নিয়ে এবার মাদকের বিরুদ্ধে আপনাদের লড়াইয়ে নামতে হবে। এই মাদক নির্মূলের কাজই হোক আপনাদের লক্ষ্য।'

শেখ হাসিনা বলেন, 'মাদকের কারণে অনেক পরিবার বিপদে পড়ছে। পরিবারগুলো ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। আমাদের মেধাবী তরুণরা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না।'

তিনি বলেন, 'বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ আসলে বিএনপি জোট সরকারের আমলে সৃষ্টি। তারাই জঙ্গি তৈরি করে দেশব্যাপী হামলা চালিয়েছে। তবে বর্তমানে এটি একটি আন্তর্জাতিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে। পেট্রোলবোমা দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা। মসজিদে আগুন দিয়ে তাণ্ডব চালানো। ২০১৩ সালের ওই তাণ্ডবে স্বাধীনতাবিরোধীরা দেশের অনেক ক্ষতি করেছে।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'জঙ্গিবাদ এখন আন্তর্জাতিক সমস্যা। অনেক দেশ জঙ্গিবাদ দমনে হিমশিম খাচ্ছে। বিশেষ করে উন্নত দেশেও এ সমস্যা রয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ পুলিশকে এ সমস্যা কঠোর হাতে দমন করেছে। এ জন্য পুলিশকে আমি ধন্যবাদ জানাই।'

তিনি বলেন, 'গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে সম্মিলিত ও পরিকল্পিতভাবে তথ্য আদান প্রদানের মাধ্যমে কাজ করতে হবে। আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো অনেক কাজ করে। তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন তথ্য পায়। তবে তথ্য পেয়েই একা কাজ করা যায় না। তথ্য আদান-প্রদান করে কাজ করলে ক্ষয়ক্ষতি কম হয়। তাই কোনো তথ্য পাওয়ার পর সংশ্লিষ্টদের জানানো উচিত।'

গুলশান হামলার উদাহারণ টেনে শেখ হাসিনা বলেন, 'ওইদিন রোজার সময় ছিল। ভোরে সবাইকে নিয়ে আমরা বৈঠক করেছিলাম। পরে বিভিন্ন তথ্য আদান-প্রদান করে অভিযানের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। ফলে পরিকল্পিতভাবে সফলতার সঙ্গে ওই অভিযান পরিচালনা করা সম্ভব হয়েছিল।'

পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, পুলিশ সদস্য যেভাবে নিয়োগ করা হয়, সেভাবে অফিসারও নিয়োগ করা হবে। না হলে লিডারশিপ আসবে কোথা থেকে। পুলিশ বাহিনীকে জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিতে জনগণকে সহায়তা করতে হবে।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'বিএনপি আন্দোলনের নামে সারাদেশে জ্বালাও-পোড়াওয়ের যে পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল, তা থেকে উত্তরণ কঠিন ছিল। কিন্তু পুলিশ সেই কাজটি দক্ষতার সঙ্গে করতে পেরেছে। যারা মানুষ পোড়ার রাজনীতি করে তারা যেন কোনো রকম জান মালের ক্ষতি না করতে পারে তার জন্য পুলিশ বাহিনীকে সজাগ থাকতে হবে।'

‘জঙ্গি, মাদকের প্রতিকার বাংলাদেশ পুলিশের অঙ্গীকার’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে শুরু হয়েছে পাঁচ দিনব্যাপী পুলিশ সপ্তাহ। চলবে ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত।

-এমএ








« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisement: 9513663
E-mail: info@dailyobserverbd.com, news@dailyobserverbd.com, advertisement@dailyobserverbd.com,   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft