For English Version
শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি, ২০১৮
হোম জাতীয়

'জঙ্গিবাদ নির্মূলে কাজ করে যাচ্ছে পুলিশ'

Published : Monday, 8 January, 2018 at 12:02 PM Count : 128


দেশের জঙ্গিবাদ নির্মূলে দক্ষতার সঙ্গে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে পুলিশ সপ্তাহ-২০১৮ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'আমরা জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হয়েছি, তবে তা (জঙ্গিবাদ) নির্মূল করতে চাই। দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চাই। নিজেদের (পুলিশ) জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।'

তিনি বলেন, 'দেশের শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য সন্ত্রাসবাদ-জঙ্গিবাদ সবচেয়ে বড় সমস্যা। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এই সমস্যাকে সমাধান করতে হবে।'

সরকারপ্রধান বলেন, 'জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দেশের শান্তি, স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি। একজন সন্ত্রাসীর কোনো ধর্ম-বর্ণ ও গোত্র নাই। সন্ত্রাসী সন্ত্রাসীই। আমরা ধর্মের নামে যেকোনো সহিংস কর্মকাণ্ডের নিন্দা জানাই।'

তিনি বলেন, 'আর বিশেষ করে ইসলাম শান্তির ধর্ম। সেখানে মানুষ হত্যা করে বেহেশতে যাওয়া যাবে- এ ধরণের বিভ্রান্তি যারা পোষণ করে, তারা কখনোই বেহেশতে যাবে না। কাজেই ইসলাম যে শান্তির ধর্ম, সেই শান্তি বজায় রাখা সবারই কর্তব্য।'

প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে আমাদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বিরাট ভূমিকা রেখেছে। এ জন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই।'

অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, 'ছেলে-মেয়েরা কোথায় যাচ্ছে, কার সঙ্গে মিশছে, স্কুল-কলেজে কখন যাচ্ছে, কখন ফিরছে এসব বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। জঙ্গিবাদের সম্পৃক্ততায় যেন না যায়-  সে ক্ষেত্রে প্রতিটি অভিভাবককে সতর্ক থাকতে হবে।'

শেখ হাসিনা বলেন, 'আমরা মনে করি, কোনো দেশের উন্নয়নের পূর্বশর্ত হলো স্থিতিশীল আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি। শান্তিপূর্ণ ও উন্নয়নমুখী দেশ গড়তে সরকার আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে শক্তিশালী করার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। পুলিশের জনবল বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। বেতন-ভাতা বাড়ানো হয়েছে। পৃথিবীর কোনো দেশে এতো বেতন-ভাতা দেওয়া হয় কি-না, আমার জানা নেই। এছাড়া, তাদের রেশন ও চিকিৎসা সেবারও ব্যবস্থা করা হয়েছে।'

তিনি বলেন, 'মিয়ানমারে অত্যাচারিত প্রায় ১০ লাখ মানুষ বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশ পুলিশ তাদের নিরাপত্তা অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে দিয়ে যাচ্ছে।'

সরকারপ্রধান বলেন, 'সফলতার জন্য আপনারা যখন পদক পাবেন, তখন প্রতিটি কাজের জন্য জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। প্রতিটি পুলিশ সদস্য অসহায় মানুষের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়াবেন। জনগণের প্রতি নিজেদের জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, 'পুলিশ বাহিনী সাহসিকতার সঙ্গে ২০১৩-১৪-১৫ সালে জ্বালাও-পোড়াও মোকাবেলা করেছে। পুলিশের ২৭ সদস্য আত্মাহুতি দিয়েছে। শান্তিরক্ষা মিশনেও পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে।'

শেখ হাসিনা বলেন, 'পুলিশ সদস্যদের প্রযুক্তিগত আরও দক্ষতা অর্জন করতে হবে। এ জন্য তাদের প্রশিক্ষণের প্রয়োজন। সরকার এই প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছে। এরই মধ্যে পুলিশের বেতন বৃদ্ধি করা হয়েছে, জনবল বাড়ানো হয়েছে। ভবিষ্যতে পুলিশের জনবল আরও বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। আইজিপির পদকে সিনিয়র সচিব করা হয়েছে। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ নির্মূলে পুলিশের অ্যান্টি টেরোরিজম ইউনিট গঠন করা হয়েছে।'

তিনি বলেন, 'এবার বিপুল সংখ্যক পুলিশ পদক দেওয়া হয়েছে। অতীতে এতো পদক দেওয়া হয়নি। এবার যারা পদক পেয়েছেন তারা আরও ভালোভাবে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ হবেন বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।'

এর আগে সোমবার বেলা ১১টায় পুলিশ সপ্তাহ-২০১৮ উপলক্ষে রাজারবাগে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে পুলিশ সপ্তাহ-২০১৮ এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন তিনি। অনুষ্ঠান শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে বার্ষিক নৈশভোজে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী।

-এমএ








« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisement: 9513663
E-mail: info@dailyobserverbd.com, news@dailyobserverbd.com, advertisement@dailyobserverbd.com,   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft