For English Version
শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৭
হোম অর্থ ও বাণিজ্য

স্বর্ণখাতে সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই: টিআইবি

Published : Sunday, 26 November, 2017 at 1:32 PM Count : 97

বাংলাদেশের স্বর্ণ আমদানিতে নির্দিষ্ট কোনো নীতিমালা না থাকায় স্বর্ণখাত চোরাচালান ও ব্যবসায়ী নির্ভর। এ খাতে সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। 

রোববার রাজধানীর ধানমণ্ডিতে টিআইবির কার্যালয়ে বাংলাদেশ “স্বর্ণখাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা: চ্যালেঞ্জ ও করণীয়” শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপনের সময় টিআইবি'র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান এ কথা বলেন। 

স্বর্ণখাতে অস্বচ্ছতা নিয়ে টিআইবি তাদের প্রতিবেদন বলছে, সার্বিকভাবে স্বর্ণখাতে ওপর সরকারের কার্যত কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। ব্যবসায়ীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় এই বাজার। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, স্থলবন্দর ও বিমান সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কর্মচারীদের একাংশের যোগসাজশ ও সম্পৃক্ততা রয়েছে। সুষ্ঠু স্বর্ণআমদানি নীতিতে প্রণীত না হওয়া এবং চোরাচালান বন্ধ না হওয়ার পেছনে রাজনৈতিক প্রভাবশালী, চোরাচালান চক্র, স্বর্ণ ব্যবসায়ী এবং চোরাচালান নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের একাংশের প্রভাব রয়েছে। 
স্বর্ণ ও স্বর্ণালঙ্কারের মান যাচাই, ক্রেতা স্বার্থ সংরক্ষিত নয়। সম্ভাবনাময় খাত হওয়া সত্ত্বেও উৎসাহমূলক পদক্ষেপের অভাবে রপ্তানি শিল্প হিসেবে বিকাশ হয়নি। চোরাচালানকারীদের শাস্তি প্রদানের দৃষ্টান্ত খুব কম। এখাত জবাবদিহিতা হীন, হিসাব বহির্ভূত, কালোবাজারি  নির্ভর এবং বিভিন্ন পর্যায়ে অনিয়ম দুর্নীতি।

বাংলাদেশের স্বর্ণ খাতের স্বচ্ছতা আনতে টিআইবির পক্ষ থেকে সরকারের উদ্দেশে এ খাতে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রণয়নের সুপারিশ করা হয়। সুপারিশে আরো বলা হয়, স্বর্ণ খাতকে একটি পূর্ণাঙ্গ আইনি কাঠামোর আওতায় আনা, স্বর্ণ বাজারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করণ, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে স্বর্ণ ও স্বর্ণালঙ্কারের মজুদ, মান যাচাই ও নিয়ন্ত্রণ, স্বর্ণ আমদানি, স্বর্ণালঙ্কার রপ্তানিতে প্রণোদনা সৃষ্টি ও প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো সংস্কার, ভোক্তার স্বার্থ রক্ষা, গোল্ড বন্ড বা সার্টিফিকেট প্রচলন, চোরাচালান প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ, বন্ধকী ব্যবসায় জবাবদিহিতা, স্বর্ণশিল্পী, কারিগর, শ্রমিকদের কল্যাণ ও অধিকার রক্ষা, তথ্যভান্ডার ও গবেষণা বাড়ানো, এখাতের অভিযোগ জমা ও নিরসন সেল প্রতিষ্ঠা, স্বর্ণনীতি বাস্তবায়ন ও পরিবীক্ষণ, খসড়া নীতিমালা চূড়ান্ত করা।

ইফতেখারুজ্জামান আরো বলেন, দেশে স্বর্ণ আমদানির সিংহভাগ চোরাচালানের মাধ্যমে হয়। দৈনিক ২৫ কোটি টাকার মত লেনদেন হয় এই খাতে। বাংলাদেশের জন্য এটি একটি সম্ভাবনাময় ক্ষেত্র। 

তিনি বলেন, আমাদের গবেষণায় উঠে এসেছে এখাতে সরকারের কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। এটি সম্পূর্ণ ব্যবসায়ী এর চোরাচালানকারীদের হাতে নিয়ন্ত্রিত হয়। যারা এই চোরালানের সাথে জড়িত তাদের বিচার হওয়ার দৃষ্টান্ত খুবই কম। যারা এই চোরাচালান নিয়ন্ত্রণ করবে বিশেষ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাংশ, স্থলবন্দর, বিমান বাহিনীর একাংশের কর্মকর্তা কর্মচারী এদের সাথে ব্যবসায়ী চোরাচালান কারীদের যোগসাজশে অনিয়ম অব্যাহত রয়েছে। 

স্বর্ণখাতে আইনের সঠিক ব্যবহার না থাকায় দুই ধরনের মানুষ ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে বলে জানান তিনি। বলেন, যারা এই খাতে কর্মরত কর্মীরা এবং ভোক্তারা প্রতারণার শিকার হয়।এখাত থেকে রাষ্ট্র অধিক পরিমাণ রাজস্ব আদায়ে ব্যর্থ হচ্ছে বলেও জানান তিনি। 

তিনি বলেন, দেশের এমন একটি সম্ভাবনাময় খাত চোরাচালান নির্ভর হবে তা আমরা চাই না। এ খাতে বৈধতা আনার জন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালা প্রয়োজন। আইনের কাঠামোর মধ্যে এনে এ খাতকে উৎসাহিত করতে হবে। এটা অসম্ভব কিছু নয়। সরকারের সদিচ্ছায় এটা সম্ভব বলেও মনে করছেন তিনি। 

আরইউ/এইচএস








« PreviousNext »



সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
Editor : Iqbal Sobhan Chowdhury
Published by the Editor on behalf of the Observer Ltd. from Globe Printers, 24/A, New Eskaton Road, Ramna, Dhaka.
Editorial, News and Commercial Offices : Aziz Bhaban (2nd floor), 93, Motijheel C/A, Dhaka-1000. Phone :9586651-58. Fax: 9586659-60, Advertisement: 9513663
E-mail: info@dailyobserverbd.com, news@dailyobserverbd.com, advertisement@dailyobserverbd.com,   [ABOUT US]     [CONTACT US]   [AD RATE]   Developed & Maintenance by i2soft